মুর্শিদাবাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কোনও আপোষ নয়,শুধুই আন্দোলন

মুর্শিদাবাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কোনও আপোষ নয়,শুধুই আন্দোলন
SHARES
Share on FacebookShareTweet on TwitterTweet

মৃত্যুঞ্জয় সর্দার: মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবিতে চলমান ছাত্র আন্দোলন কে সঙ্গত বলে মন্তব্য করলেন রাজ্য এডহক কমিটির সদস্য আবু তাহের আনসারী। তিনি বলেন, অতীতের বাংলা, বিহার, উড়িষ্যার রাজধানী হিসেবে ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ এই মুর্শিদাবাদ জেলায় আজও পূর্নাঙ্গ কোনও বিশবিদ্যালয় গড়ে ওঠেনি। এমন ঐতিহাসিক মুর্শিদাবাদ জেলা কেন আজও কোনও বিশবিদ্যালয় পেল না এ নিয়ে প্রশ্ন আরও ঘনীভূত হচ্ছে। যেখানে অধিকাংশ জেলা বিশবিদ্যালয় পেয়েছে। প্রশ্ন উঠছে অধিক সংখ্যায় মুসলিম বসতিই কি এর মূল কারণ?

মুর্শিদাবাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কোনও আপোষ নয়,শুধুই আন্দোলন
মুর্শিদাবাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কোনও আপোষ নয়,শুধুই আন্দোলন

তিনি আরও বলেন, পশ্চিমববঙ্গের একটি বৃহত্তম জেলা মুর্শিদাবাদ। ভারতের বৃহত্তম জনসংখ্যা ভিত্তিতে ১০টি জেলার মধ্যে মুর্শিদাবাদ নবম। প্রতি বছর প্রায় ৩০০০০ এরও বেশি ছাত্র ছাত্রী এই জেলা থেকে বিভিন্ন বিষয়ে স্নাতক হন। প্রায় ৮০ লক্ষ মানুষের বাস এখানে, যার মধ্যে ৬৮%মুসলিম,৩১% হিন্দু ও বাকি ১% অন্যান্য সম্প্রদায়ের মানুষের বাস।

মুর্শিদাবাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কোনও আপোষ নয়,শুধুই আন্দোলন
মুর্শিদাবাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে কোনও আপোষ নয়,শুধুই আন্দোলন

কলকাতায় স্টেট ইউনিভার্সিটি অনেক গুলি। রাজ্যে সেন্ট্রাল ইউনিভার্সিটি আছে এবং প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি ৮ টিরও বেশি। অথচ আজও মুর্শিদাবাদে একটিও বিশবিদ্যালয় গড়ে তুলতে সরকার চরম ভাবে ব্যর্থ কোন অদৃশ্য কারণে।

আবু তাহেরের কথায়, এই জেলাকে আরও পিছিয়ে দিতে চক্রান্ত করছে কারা। এটা মানুষ এখন বুঝতে পারছে। আবু তাহের আনসারি বামফ্রন্ট ও কংগ্রেস শাষনের কথা উল্লেখ করে বলেন স্বাধীনতার পর থেকে কংগ্রেস এবং তার পর ৩৪ বছর ধরে বাম রাজত্বে করাও একবার ও মনে হয়নি মুর্শিদাবাদে একটি সাধারণ বিশবিদ্যালয় অবশ্যই দরকার। চক্রান্ত করে পিছিয়ে রাখা হয়েছে এই জেলাকে। মানুষ শিক্ষার মূল্য বুঝেছে। এবার মা মাটি মানুষের সরকারের আমাদের প্রকৃত মানই দরদী মুখ্যমন্ত্রী যথাযথ বিহিত করবেন বলে মানুষের আশা ছিল। রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস অতি দক্ষতার সহিত ৬ বছরের শাসনকালে রাজ্যের বিভিন্ন জেলার ১৫টি নতুন বিশবিদ্যালয় তৈরী করেছে। রাজ্যে আরও ৭টি নতুন বিশবিদ্যালয় তৈরির অনুমোদন দেওয়া হল সম্প্রতি। অথচ মুর্শিদাবাদের এখনও একটি বিশবিদ্যালয় গড়ে তোলার অনুমতি দেওয়া হল না। এই জেলায় এম.পি এম.এল.এ র কোন অভাব নেই কিন্তু বিশবিদ্যালয়ের প্রয়োজন বলার অভাব লক্ষ করা গেছে। অবিলম্বে বিশবিদ্যালয় না হলে জেলার ছাত্র যুবকরা ব্যালটে তার প্রকাশ ঘটাবেন।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

সারা পৃথিবী যখন শিক্ষাদীক্ষায় ও ঞ্জান. গরিমায়. এগিয়ে চলেছে ঠিক তখন আমাদের দেশের নেতা মুন্ত্রীরা শিক্ষা ব্যবস্থার লাগাম ধরে পেছনে টানছে। ভাবতে অবাক লাগে এক সময়ে যে মুর্শিদাবাদ জেলার ঐতিহ্য একদিন লন্ডনকেও হার মানিয়েছে, যে জেলা থেকে কেন্দ্রের অর্থমন্ত্রী হয়েছে, সেই জেলার জন্য বছরের পর বছর ধরে বিশবিদ্যালয়ের জন্য আন্দোলন করতে হচ্ছে, এটা চরম লজ্জাজনক ব্যাপার। শিক্ষা একটি মৌলিক অধিকার,আর এ অধিকারকে পরিকল্পিত ভাবে বঞ্চিত করছে সরকার। এ সরকার দেশের জন্য কলঙ্ক। এহেন পরিস্থিতিতে মুর্শিদাবাদের ছাত্রদের করুন দুর্দশাতে ফ্রাটার্নিটি মুভমেন্ট চুপ করে বসে থাকতে পারেনা। এর জন্য আন্দোলন অপরিহার্য। ‘সহকারী কনভেনার রাম হালদার বলেন, ডিজিটাল ইন্ডিয়ার যুগে কেন মুর্শিদাবাদকে বঞ্চনার শিকার হতে হচ্ছে? কেন শিক্ষার জন্য আন্দোলন করতে হচ্ছে?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *