পুলিশের জালে মাদকপাচারকারী

SHARES
Share on FacebookShareTweet on TwitterTweet

তিথি রায় চৌধুরী

কিছুদিন ধরেই চলছিল পুলশের নজরদারি।সেই তালিকা থেকে বাদ পড়েনি হাওড়া, হুগলি, ব্যান্ডেল, বর্ধমান সহ একাধিক জায়গা।চোখে ধূলো দিয়ে পালাতে চাইলেও, অবশেষে পুলিশের জালে পড়ল ৫ জন মাদকপাচারকারী।বাকিরা পলাতক।

দীর্ঘ কিছুদিন ধরেই পুলিশের কাছে আন্তর্জাতিক মাদক পাচার চক্রের ব্যাপারে কিছু খবর ছিল।সেই মতোই তারা তল্লাশি অভিযান শুরু করলে ১৭৮ কেজি গাজা সহ ৫ জন লোক কে বামাল সমেত গ্রেফতার করে।ধৃত ব্যক্তিদের মধ্যে ৪ জন মহিলা ও ১ জন পুরুষ বলে পুলিশ দাবি করেছে।ধৃত ব্যক্তিদের কাছ থেকে ১৩ বস্তা গাজা উদ্ধার হয়েছে,যার আনুমানিক বাজারমূল্য প্রায় ৮ লক্ষ টাকার কাছাকাছি বলে জানা গেছে।তাছাড়াও ধৃত ব্যক্তিদের কাছ থেকে কিছু হেরোইনের প্যাকেট ও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

গোপন সূত্রে,খবর পেয়ে পুলিশ পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়া স্টেশনে তল্লাশি অভিযান শুরু করে।সেখান থেকেই কাটোয়া পুলিশের একটি দল মাদকপাচারকারীদের গ্রেফতার করে।পুলিশ তদন্তের ভিত্তিতে জানতে পারে যে,ধৃত ১ জন পুরুষের বাড়ি কাটোয়াতেই।নাম ফিরদৌস মল্লিক।বাকী ৪ জন মহিলার বাড়ি মুর্শিদাবাদের সালার ও বহরমপুর এলাকায়।ধৃত রা সকলেই আন্তর্জাতিক মাদক পাচার চক্রের সাথে জড়িত বলে পুলিশ দাবি করেছে।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

পুলিশ সূত্রে জানা যায়,ধৃত ওই ৫ জন ব্যক্তি ছাড়াও আরো অনেকেই ছিল। কিন্তু তল্লাশি অভিযান চালানোর সময় বাকীরা পালিয়ে যায়।তাছাড়া,ধৃত ব্যক্তিরা উড়িষ্যার জজপুর থেকে ট্রেনে উঠে কাটোয়া স্টেশনে নেমেছিল,ওখান থেকেই গঙ্গা পেরিয়ে নিজেদের আস্তানায় নিয়ে যাবার কথা ছিল,কিন্তু শেষ রক্ষা হল না।পুলিশের জালে পড়ল ৫ মাদক পাচারকারী।উদ্ধার হওয়া মাদক দ্রব্যগুলি বাংলাদেশেও পাচারের পরিকল্পনা ছিল, বলে পুলিশি জেরায় তারা জানিয়েছে।

সোমবার ই ধৃত ব্যক্তিদের আদালতে তোলা হবে বলে পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন।তাছাড়া, ধৃত ব্যক্তিদের বারংবার জেরা করে জানতে চাওয়া হচ্ছে যে,এই মাদক পাচার চক্রের সাথে আর কারা কারা জড়িত?এর মূল পান্ডা কে বা কারা? কোথায় কোথায় পাচারকৃত মাল সরবরাহ হত, তা ও জানার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।তবে,এখনো পর্যন্ত পুলিশি জেরায় মুখ খোলেননি ধৃত ব্যক্তিরা।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *