মমতা টুপি পড়াচ্ছেন সংখ্যা লঘু মোর্চাদের : দিলীপ ঘোষ

মমতা টুপি পড়াচ্ছেন সংখ্যা লঘু মোর্চাদের : দিলীপ ঘোষ
SHARES
Share on FacebookShareTweet on TwitterTweet

ওয়েব ডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটির উদ্যোগে ভারতীয় জনতা পার্টির সংখ্যা লঘু মোর্চা সম্প্রদায়ের তরফে বৃহস্পতিবার একটি মিছিল ও প্রকাশ্য সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন সংখ্যা লঘু মোর্চার প্রেসিডেন্ট আলি হুসেন,দিলিপ ঘোষ, মুকুল রায়, সহ জাতীয় স্তরের বিভিন্ন নেতা-নেত্রীরা।

মমতা টুপি পড়াচ্ছেন সংখ্যা লঘু মোর্চাদের : দিলীপ ঘোষ
মমতা টুপি পড়াচ্ছেন সংখ্যা লঘু মোর্চাদের : দিলীপ ঘোষ

এদিন সকাল ১১.৩০ নাগাদ বিজেপি হেড কোয়াটার থেকে শুরু করে ধর্মতলার ওয়াই চ্যানেল পর্যন্ত মিছিলটির সমাবর্তন দেখা যায়, যার নেতৃত্বে ছিলেন রাজ্য কমিটির পর্যবেক্ষক আরসাদ আলম। সম্মেলনটি বিকেল চারটে পর্যন্ত চলে। পাশাপাশি, এদিনের সম্মেলন সভায় ৩৫ জন সদস্যের বিজেপী তে যোগদানের কথাও জানা যায়, যোগদানের পর তাদের সকলের হাতে গেরুয়া পতাকাও তুলে দেওয়া হয়।

সভা থেকে উঠে এসেছে বিভিন্ন জনের বক্তব্য। ভারতী ঘোষের প্রসঙ্গ টেনে এনে মাপুজা খাতুন বলেন, (মাইনরিটি বিভাগের ভায়েস প্রেসিডেন্ট ) ‘পুলিশ কর্মীদের বলছি আপনারা নিরপেক্ষভাবে চলবেন, নাহলে ভারতী ঘোষ কে ব্যবহার করে যেভাবে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছে কিংবা কিষেনজি,দময়ন্তী সেন, ভারতী ঘোষের মত অবস্থা হবে আপনাদেরও হবে।’ এদিকে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ও চড়াও হয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে। তিনি মুখ্যমন্ত্রীকে মমতা বিবি বলে কটাক্ষ করেন। তিনি বলেন , আলিপুরদুয়ারে জনসভায় জোর গলায় বলেছিলেন ‘লাই ইলা আল্লাহ’ অন্তর দিয়ে পাঠ করেছেন। ভারতীয় জনতা পার্টির মোর্চাদের আমি বলবো ওনাকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নয় বরং বলবেন মমতা বিবি, মমতা খাতুন, মমতা সুলতানা।’

পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ সভায় বলেন মাইনরিটি মোর্চাদের টুপি পড়াচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়া সভা থেকে তিনি প্রশ্ন করেন , ৩১% মাইনরিটি মানুষের শিক্ষার জন্য ,আর্থিক উন্নতির জন্য, স্বাস্থ্যের জন্য মুখ্যমন্ত্রী কি করেছেন? এছাড়াও তিনি বলেন, সারা দেশের থেকে পশ্চিমবঙ্গে বেশির ভাগ ব্যাক্তি ৫ হাজার টাকায় সংসার চালায়। কেন তাঁরা এত কম রোজগার করেন?

সবুজ সাথী নিয়েও তিনি কটাক্ষ করে বলেন, ‘একটা সাইকেল দিয়েছেন তাতে টিউব নেই , নাটবল্টু নেই , এমন সাইকেল দিচ্ছেন যেটা বাড়ি পর্যন্ত চালিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় না। ৫০০ টাকা খরচ করতে হয় দেওয়ার পরে’।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *