আইএসএলে ইষ্ট-মোহনের খেলা নিয়ে কৌশলী কুশল

আইএসএলে ইষ্ট-মোহনের খেলা নিয়ে কৌশলী কুশল
SHARES
Share on FacebookShareTweet on TwitterTweet

ওয়েব ডেস্ক : আইএসএল শুরুর বছর দুয়েকের মধ্যেই বিতর্কে জড়িয়েছে। বিতর্কের কারণ এক দেশে দুই লিগ হওয়া নিয়ে। কাঠগড়ায় উঠেছে এআইএফএফ।

ফুটবলের নিয়ম অনুযায়ী এক দেশে একটাই লিগ হয় এবং সেই লিগ ৮-৯ মাস ধরে চলা উচিৎ। আইএসএল শেষ হয় দুমাসের মধ্যে। মাত্র দুমাসের লিগে প্লেয়ারদের খেলার মানের উন্নতি কতটা সম্ভব সে নিয়ে প্রশ্ন থাকছেই। পাশাপাশি আইএসএল ফিফা সিকৃত টুর্নামেন্ট নয়। সেক্ষেত্রে আইএসএল চ্যাম্পিয়নরা এএফসি কোনো টুর্নামেন্টে অংশ নিতে পারবেনা।

আইএসএলে ইষ্ট-মোহনের খেলা নিয়ে কৌশলী কুশল
ছবি প্রতীকী

দুই লিগের যুদ্ধে এগিয়ে আইএসএল। আইএমজিআরের চাপে কার্জত মেরুদণ্ডহীন এআইএফএফ। ফিফাও জানিয়ে দিয়েছে দেশে একটাই লিগ করতে হবে। স্বভাবতই এআইএফএফ আইলিগ বন্ধের পথেই এগোচ্ছে। সেক্ষেত্রে ভারতীয় ফুটবলের মুল স্তম্ভ ইষ্ট-মোহনের ভবিষ্যৎ কি হবে ?

এআইএফএফ সচিব কুশল দাশ ইষ্ট-মোহনের কোটেই বল ঠেলেছেন। তার সাফ কথা, “দুটো ক্লাবেরই অনেক ঐতিহ্য রয়েছে, সমর্থকও প্রচুর। এসব দিয়ে পেশাদার ফুটবল চলবে না। স্পনসর ক্লাবগুলোকেই জোগাড় করতে হবে।”

আইএসএলে ইষ্ট-মোহনের খেলা নিয়ে কৌশলী কুশল
সাংবাদিক সম্মেলনে কুশল দাস

আইএসএল দেশের প্রধান লিগ হলে প্রাধান্য পাবে দলগুলি কিন্তু ক্লাবগুলোর নেই কোনো ক্লাব, নেই পরিকাঠামো। খেলাধুলোর সমস্ত পরিকাঠামো ছাড়া মরসুমে একবার মাদ্রিদের মতো পরিকাঠামোয় অনুশীলন করিয়ে জাতীয় ফুটবলের উন্নতি কতটা সম্ভব? দলে যে পরিমাণ বিদেশী প্লেয়ার খেলেন, তাতে ভারতীয় ফুটবলের উন্নতি কতটা সম্ভব সে নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন একাধিক প্রাক্তন ফুটবলার।

ইষ্টবেঙ্গল সচিব শান্তিরঞ্জন দাশগুপ্ত খোঁচা দিতে ছাড়েননি কুশক বাবুকে। তিনি বলেন, “উনি আগে ক্রিকেটে ছিলেন, এখন ফুটবলে, এরপর হয়তো কবাডিতে যোগ দেবেন। ” কুশল বাবুকে ফুটবলের ইতিহাস সম্পর্কেও জানতে বলেছেন। ‘ফ্রম বেয়ার ফুট টু ফুটবল’ বইটিও পড়ার পরামর্শ দেন।

এআইএকএক অবশ্য শাক দিয়ে মাছ ধাকতে তৈরি। এই বছর আইলিগ ও আইএসএলের প্রথম দুটি করে দল একটি টুর্নামেন্ট খেলবে, যেটা হবে ফেড কাপের পরিবর্তে। যদিও এএফসি টুর্নামেন্টে সুযোগ পাবে দুই লিগের চ্যাম্পিয়ন। বিতর্কের মধ্যেই দুই প্রধানের ভবিষ্যৎ অন্ধকারে।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *