শিশুদিবসে অন্য মাত্রা যোগ করল বি.ডি.এম

শিশুদিবসে অন্য মাত্রা যোগ করল বিডিএম
SHARES
Share on FacebookShareTweet on TwitterTweet

সুদীপ্তা বিশ্বাস: শিশু দিবসে বিডিএম আন্তর্জাতিক স্কুলের তরফে ও বিখ্যাত চিত্রশিল্পী মাননীয় কিশলয় বোরার সহযোগিতায় একটি সামাজিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আয়োজিত অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দিনটিতে একটি অন্য মাত্রা যোগ হয়।

স্কুল কর্তৃপক্ষের কথায়, “ মাননীয় শ্রী কিশলয় বোরা মহাশয় মুম্বাই-এর একজন বিখ্যাত চিত্রশিল্পী যার সহযোগিতায় শেষ দুই দিন থেকে আমরা প্রকল্পটির সাথে কাজ করছি।”

শিশুদিবসে অন্য মাত্রা যোগ করল বিডিএম
উদ্বোধন অনুষ্ঠান

এদিন সকালে গাছের গায়ে ব্যান্ডেজ বাঁধা দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়। যেটি গাছেদের আহত হওয়ার প্রতিভূ হয়ে ওঠে। ঠিক যেমনটা আহত মানুষের ক্ষেত্রে হয়। যদিও এমন বাঁধন দেখতে খুবই মজার , কিন্তু গাছেদের নিয়ে সমাজকে বার্তা দিতে এটি খুবই কার্যকর একটি উদ্যোগ। শিক্ষার্থীরা মাননীয় শ্রী কিশলয় বাবুর পরামর্শে অনুযায়ী গাছপালা বাঁধার উদ্যোগটি গ্রহণ করেন বলে জানানো হয় স্কুলের তরফে।

শ্রী কিশলয় বোরা মহাশয় কে তাঁর এমন অদ্ভুত একটি ভাবনার সম্বন্ধে জানতে চাইলে তিনি বলেন , “ আমরা মানুষেরা প্রকৃতপক্ষে নিজেদের ক্ষত দেখাতে পারি, চিকিৎসা করিয়ে সুস্থ ও হতে পারি, পশুপাখিদেরও তাদের ক্ষত প্রদর্শনের বিশেষ শব্দ আছে, কিন্তু গাছ নীরব হয়, ভাষাহীন একটা নীরব পৃষ্ঠে তাদের সব ক্ষত আড়াল হয়ে যায়। তাই মানুষকে বৃক্ষের কষ্টের সম্পর্কে, আঘাত সম্পর্কে সচেতন করতে, বৃক্ষ সম্পর্কিত এই উদ্যোগ গৃহীত হয়েছে। গাছ কাটা থামানোর জন্য এটি একটি ছোট উদ্যোগ। কারণ গাছ কাটার ফলে শেষ পর্যন্ত আমরা নিজেদেরকেই আঘাত করি, আমরা নিজেদেরকেই ধ্বংস করি। বিশ্বকে সুন্দর করে তোলাও একটি উন্নয়ন। আমাদের গাছের সাথে বাঁচতে হবে এবং গাছ কাটা থেকে বিরত থাকতে হবে। ”

শিশুদিবসে অন্য মাত্রা যোগ করল বিডিএম
গাছের গায়ে ব্যান্ডেজ করা হচ্ছে

এই উদ্যোগের লক্ষ্য বিচার করে বলা যায় শ্রী কিশলয় বোরা শিশুদের জন্য নিঃসন্দেহে একজন সুন্দর পরামর্শদাতা এবং শিশু দিবসের সন্ধ্যায় আসন্ন প্রজন্মের জন্য একটি বড় বার্তা বহনকারীও বটে।

এছাড়াও শিশুদিবসের সন্ধ্যায় বিডিএম আন্তর্জাতিকের তরফে বৃদ্ধ মানুষদের উদ্দেশ্যে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। যে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে স্কুলের ছোট ছোট শিশুদের সাথে সমাজের সেই সকল বয়স্ক মানুষদের সাথে সম্পর্কযুক্ত করা হয় যাঁরা আজকাল পরিবার থেকে দূরে অন্যত্র বেঁচে রয়েছেন।

এটি কোনো এনজিও নয় বরং সম্পর্ক যুক্ত করার মাধ্যম। যা তাদেরকে মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাপন করতে শেখায়। আজকের এই সমাজে বিডিএম আন্তর্জাতিক স্কুলের এটি একটি ছোট প্রয়াস কারণ বিডিএম আন্তর্জাতিক স্কুলের সঙ্গে যুক্ত কারণ প্রত্যেক শিশুরাই তাদের বৃদ্ধ মানুষদের নাতি নাতনি সম।

শিশুদিবসে অন্য মাত্রা যোগ করল বিডিএম
বরিষ্ঠ নাগরিকদের নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান

বয়স্ক মানুষেরা সপ্তম তলা-র এই মিলনায়তনে তাদের ছোট ছোট শিশুদের সাথে সময় কাটানোয়
শিশুদিবসের সন্ধ্যা এক অন্য মাত্রা পায়। এই দিন সন্ধ্যায় তাদের সামান্য সুখ বজায় রাখার জন্য বাচ্ছাদের পাশাপাশি শিক্ষক শিক্ষিকারাও অনুষ্ঠানে যোগদান করেন।

এককথায় বলা যায়, শিশুদিবসের সন্ধ্যাকে এক অনন্য মাত্রা দিতে ও বৃদ্ধ মানুষদের উজ্জীবিত করতে বিডিএম আন্তর্জাতিক স্কুলের এটা একটি বিনিময় অনুষ্ঠান।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *