লোকসভা নির্বাচনের আগে ধস বিজেপির ভোটে

নিজ রাজ্যেই কী ফিকে হচ্ছে মোদী ম্যাজিক?
SHARES
Share on FacebookShareTweet on TwitterTweet

নিজস্ব সংবাদদাতা

একের পর এক রাজ্যে ছলে বলে কৌশলে বা নির্বাচনে জিতে যখন বিজয় ধ্বজা নিয়ে উচ্ছসিত অমিত মোদী শিবির, তখন ই বিজেপির কপালে বড় ভাঁজ ফেললো ১১ টি উপনির্বাচনের ফলাফল। দেশ জুড়ে প্রায় সবকটিতেই ধরাশায়ী কেন্দ্রের শাসক দল। ১১-র মধ্যে একটি আসন দখল করে শান্তনা পুরস্কার নিয়েই খুশী থাকতে হলো বিজেপি কে। অন্যদিকে বিরোধী শক্তি যে চিন্তার কারণ হতে চলেছে তা ভালো ভাবেই বুঝিয়ে দিলো বিরোধী দল গুলো।

লোকসভা নির্বাচনের আগে ধস বিজেপির ভোটে
ছবি প্রতীকী

বৃহস্পতিবার দেশ জুড়ে ১১ টি উপনির্বাচনের ফলাফলে ১০ টি তেই ধরাশায়ী অমিত-মোদী শিবির। দেশের ১১ টা বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে মাত্র ১ টিতে জিতেই শান্ত থাকতে হল তাঁদের।  কর্নাটক থেকে মেঘালয় সবগুলিতেই গেরুয়া শিবিরের রথ থামিয়ে দিল অবিজেপি শক্তি। কর্নাটকের আর আর নগর বিধানসভা উপনির্বাচনে ৪১,১৬২ ভোটে কংগ্রেসের কাছে হারতে হয়েছে বিজেপিকে। একই অবস্থা মেঘালয়ের আমপাতিতে ৩,১৯১ ভোটে জয়ী হয়েছেন কংগ্রেসের মনি ডি সিরা। পাঞ্জাবের শাহকোটে ৩৮,৮০২ ভোটে জিতেছেন কংগ্রেস প্রার্থী হরদীপ সিং লাড্ডি। বিহারের জোকিরহাটে ৪১,২২৪ ভোটে জয়ী হয়েছেন আরজেডি প্রার্থী শাহনওয়াজ। পশ্চিমবঙ্গের মহেশতলায় অনায়াসেই জয়ী হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। ৬২,৮৯৬ ভোটে জিতেছেন তৃণমূল প্রার্থী দুলালচন্দ্র দাস। ঝাড়খণ্ডের দুটি কেন্দ্রের একটিতেও দাঁত ফোটাতে পারেনি বিজেপি। গোমিয়ায় ২০০০ ভোটে জিতেছেন ঝাড়খণ্ড মুক্তিমোর্চার প্রার্থী ববিতা দেবী। সিল্লিতে ১৩,৫১০ ভোটে জিতেছেন ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার নেত্রী সীমা দেবী। মহারাষ্ট্রের কাদেগাঁওয়েও জিতেছে কংগ্রেস।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

প্রসঙ্গত এ রাজ্যে মহেশতলা কেন্দ্র নিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী মেজাজে ছিলেন টিম দিলীপ-মুকুল। নির্বাচনের পর বিজেপি নেত্রী লকেট চ্যাটার্জী দাবী করেছিলেন এরকম স্বচ্ছ নির্বাচন হলে তৃণমূল ধুয়ে মুছে যাবে। কিন্তু ফলাফল হলো ঠিক উল্টো। তৃণমূল প্রার্থীর কাছে বড় মার্জিনে হেরে দ্বিতীয় স্থানেই সন্তুষ্ট থাকতে হলো তাদের।

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের পর একক ভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিলো বিজেপি। বিজেপি একাই ম্যাজিক ফিগার ছুঁয়ে ফেললেও চার বছরে সেই চিত্রের পরিবর্তন স্পষ্ট ঈঙ্গিত দেয় মানুষ ভরসা হারিয়েছে অনেকটাই। বিগত ৪ বছরে একাধিক উপনির্বাচনে পরাজিত হয়ে বর্তমানে বিজেপির আসন সংখ্যা ২৮২ থেকে কমে ২৭১। অন্যদিকে সম্প্রতি কর্ণাটকে এক মঞ্চে বিরোধী শক্তির ঐক্য ঘুম কেড়েছিলো বিজেপির। তারপর উপনির্বাচনে এ হেন ফল কিন্তু পরিস্কার ঈঙ্গিত দেয়, ২০১৯ -এ দ্বিতীয় এন ডি এ সরকারের পক্ষে গদি ধরে রাখা মোটেই সহজ কাজ হবেনা।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *