প্রেমিকার অভিযোগে ধৃত ‘বিবাহিত’ বিজেপি নেতা

SHARES
Share on FacebookShareTweet on TwitterTweet

তিতলী সেনগুপ্ত: উপনির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে নোয়পাড়ায় মঞ্জু বসুর নাম ঘোষণা নিয়ে ইতিমধ্যেই বিড়ম্বনায় পড়েছে বিজেপি। ঘটনার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই এবার বিজেপির অস্বস্তি বাড়ালেন সদ্য তৃণমূল থেকে আসা আনিসুর রহমান। প্রেম ঘটিত কারণে সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া এই নেতাকে গ্রেফতার করল পুলিশ।

আনিসুরের প্রেমিকা বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ে এমফিল এর ছাত্রী। তমলুকের বাসিন্দা ওই তরুণী মেদিনীপুরে এক মেসে থাকেন । বেশ কিছুদিন আনিসুরের সঙ্গে সম্পর্ক চললেও পরে তাদের সম্পর্কে চির ধরে। ঘটনায় গত রবিবার ভোরে ওই তরুণী ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। এরপর তাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকের নির্দেশে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে প্রেমিকার অসুস্থতার খবর পেয়ে হাসপাতালে যান আনিসুর। অভিযোগ, মেয়েটিকে রীতিমত জোর করে নার্সিংহোম থেকে ছাড়ানোর চেষ্টা করেন ওই বিজেপি নেতা। ঘটনাটি যাতে প্রকাশ্যে না আসে সেই উদ্দেশ্যে এই পদক্ষেপ নিতে চায় আনিসুর, এমনটাই অভিযোগ। এর পর মেয়েটির অভিযোগ পেয়ে থানায় আসে কোতয়ালি থানার পুলিশ। খবর পেয়ে স্থানীয় তৃণমূল নেতা স্নেহাশিস ভৌমিকও নার্সিংহোমে যায়। তিনি আনিসুরের গ্রেফতারের দাবী জানান। গভীর রাতে তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সোমবার ওই বিজেপি নেতাকে মেদিনীপুর জেলা আদালতে তোলা হয়।

জানা গিয়েছে আনিসুরের স্ত্রী, সন্তান থাকা সত্ত্বেও ওই ছাত্রীর সঙ্গে তিনি সম্পর্ক রেখে চলছিলেন। ২৪ বছরের ওই যুবতীর বাড়ি তমলুকে। আনিসুরে বিতর্ক থেকে দূরে থাকার ইঙ্গিত দিয়েছে গেরুয়া শিবির। পশ্চিম মেদিনীপুর বিজেপি জেলা সভাপতি সমিত দাস জানান তিনি কিছুই জানেন না।

প্রসঙ্গত কিছুদিন আগেই বহিঃষ্কৃত সিপিএম সাংসদ ঋতব্রতর বিরুদ্ধে মহিলা ঘটিত অভিযোগ ওঠার পর সেক্ষেত্রেও নাম জড়ায় মুকুল রায়ের। এক্ষেত্রেও মুকুল ঘনিষ্ঠ আনিসুরের নাম জড়ানোয় খানিক বিড়ম্বনায় তিনিও। একদিকে সবং-এ পরাজয়,অন্যদিকে নোয়াপাড়ায় মুখ পোড়ার পর এ ঘটনা যে মুকুলের ইমেজ কে ব্যাকফুটে ফেলে দেবে সে কথা বলাই বাহুল্য। মুকুল ম্যাজিক প্রত্যাশা যে বুমেরাং হতে চলেছে রাজ্য বিজেপির, বলে অভিমত শাসক দলের একাংশের।প্

তিতলী সেনগুপ্ত: উপনির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে নোয়পাড়ায় মঞ্জু বসুর নাম ঘোষণা নিয়ে ইতিমধ্যেই বিড়ম্বনায় পড়েছে বিজেপি। ঘটনার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই এবার বিজেপির অস্বস্তি বাড়ালেন সদ্য তৃণমূল থেকে আসা আনিসুর রহমান। প্রেম ঘটিত কারণে সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া এই নেতাকে গ্রেফতার করল পুলিশ।

আনিসুরের প্রেমিকা বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ে এমফিল এর ছাত্রী। তমলুকের বাসিন্দা ওই তরুণী মেদিনীপুরে এক মেসে থাকেন । বেশ কিছুদিন আনিসুরের সঙ্গে সম্পর্ক চললেও পরে তাদের সম্পর্কে চির ধরে। ঘটনায় গত রবিবার ভোরে ওই তরুণী ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। এরপর তাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকের নির্দেশে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে প্রেমিকার অসুস্থতার খবর পেয়ে হাসপাতালে যান আনিসুর। অভিযোগ, মেয়েটিকে রীতিমত জোর করে নার্সিংহোম থেকে ছাড়ানোর চেষ্টা করেন ওই বিজেপি নেতা। ঘটনাটি যাতে প্রকাশ্যে না আসে সেই উদ্দেশ্যে এই পদক্ষেপ নিতে চায় আনিসুর, এমনটাই অভিযোগ। এর পর মেয়েটির অভিযোগ পেয়ে থানায় আসে কোতয়ালি থানার পুলিশ। খবর পেয়ে স্থানীয় তৃণমূল নেতা স্নেহাশিস ভৌমিকও নার্সিংহোমে যায়। তিনি আনিসুরের গ্রেফতারের দাবী জানান। গভীর রাতে তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সোমবার ওই বিজেপি নেতাকে মেদিনীপুর জেলা আদালতে তোলা হয়।

জানা গিয়েছে আনিসুরের স্ত্রী, সন্তান থাকা সত্ত্বেও ওই ছাত্রীর সঙ্গে তিনি সম্পর্ক রেখে চলছিলেন। ২৪ বছরের ওই যুবতীর বাড়ি তমলুকে। আনিসুরে বিতর্ক থেকে দূরে থাকার ইঙ্গিত দিয়েছে গেরুয়া শিবির। পশ্চিম মেদিনীপুর বিজেপি জেলা সভাপতি সমিত দাস জানান তিনি কিছুই জানেন না।

প্রসঙ্গত কিছুদিন আগেই বহিঃষ্কৃত সিপিএম সাংসদ ঋতব্রতর বিরুদ্ধে মহিলা ঘটিত অভিযোগ ওঠার পর সেক্ষেত্রেও নাম জড়ায় মুকুল রায়ের। এক্ষেত্রেও মুকুল ঘনিষ্ঠ আনিসুরের নাম জড়ানোয় খানিক বিড়ম্বনায় তিনিও। একদিকে সবং-এ পরাজয়,অন্যদিকে নোয়াপাড়ায় মুখ পোড়ার পর এ ঘটনা যে মুকুলের ইমেজ কে ব্যাকফুটে ফেলে দেবে সে কথা বলাই বাহুল্য। মুকুল ম্যাজিক প্রত্যাশা যে বুমেরাং হতে চলেছে রাজ্য বিজেপির, বলে অভিমত শাসক দলের একাংশের।

ADVERTISEMENT
ADVERTISEMENT

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *